আমার দৃষ্টিকোণে – ২

ইদানীং সরকারি দলের কয়েকজন বন্ধুর মাধ্যমে জানতে পারলাম আওয়ামী লীগের মধ্যেও অনেক নেতা ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে হামলা, মামলা, জেল ও জুলুম এমনকি হত্যা পর্যন্ত হচ্ছে! তার কোন বিচার পর্যন্ত হচ্ছে না! বিরোধী দলগুলোর কথা বাদই দিলাম।বাদ যাচ্ছে না ছাত্র-ছাত্রী, সাংবাদিক, শিক্ষক সহ সাধারন মানুষেরাও।নতুন করে এই দলে ব্যাপকভাবে আসতে শুরু করছে আলেম সমাজের ব্যাক্তিবর্গরাও।নিরিহ, নির্যাতিত মানুষগুলোর জন্য প্রত্যেকবারই আমাদের প্রচুর হ্যাশট্যাগ দিতে হয়। কিন্তু উচিত ছিল নাগরিকের অধিকার আদায়ে আইনকে তার নিজস্ব গতিতে চলতে দেয়া। একজন মন্ত্রী যেভাবে আইন কে ব্যাবহার করবেন তেমনি মধ্য রাতের মধ্যপ একজন পতিতা নারীও সেভাবে আইনের সহযোগিতা পাবেন।হ্যাশট্যাগ দিয়েও সাগর- রুনির হত্যার বিচার হয়নি, হয়নি তনু, বিশ্বজিৎসহ আরো অনেক হত্যার বিচার। ফিরে আসেনি সাদা পোশাকে তুলে নিয়ে যাওয়া অসংখ্য মায়ের সন্তানেরা! এভাবে আর কত? হয়ত ত্বহা ফিরেছে, কিন্তু অনেকেই তো ফিরেনি!ফিরে আসা ফরহাদ মাজহার, আবু বক্কর, সালাহ উদ্দিন’রাও তো কোনদিন মুখ খোলেননি, রহস্যেরও উন্মোচন হয়নি আজও! হয়ত হবেও না!এছাড়াও অভিযুক্ত হওয়ার আগেই সাজা, বিনা নোটিশে তুলে নিয়ে যাওয়া, তুলে নিয়ে স্বীকার না করা, সাধারণ নাগরিকদের জিডি গ্রহন না করা, ভিন্নমতের মানুষদের গুম করে দেওয়া!আমরা সঠিক আইন চাই, সঠিকভাবে আইনের বাস্তবায়ন চাই, আজ ত্বহা, কাল কিন্তু আপনি। সুতরাং আর কত হ্যাশট্যাগ? এখন সময় এসেছে দলমতের উর্ধ্বে থেকে সকল নাগরিকের মৌলিক অধিকার রক্ষায় প্রত্যক্ষভাবে এগিয়ে আসুন, কথা বলুন, সাদাকে সাদা ও কালোকে কালো বলুন। হোক সেটা ত্বহা, আরমান, আযমী, ইলিয়াস আলী, ফেলানী, সাগর ও রুনি, রোজিনা অথবা পরী মনি।।

১৯/০৬/২০২১ খ্রিস্টাব্দ।